কুরআনী অনুশাসন ছাড়া দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়: আল্লামা বাবুনগরী- জনকল্যাণ২৪

প্রকাশিত: ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২১

কুরআনী অনুশাসন ছাড়া দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়: আল্লামা বাবুনগরী- জনকল্যাণ২৪

জনকল্যাণ:- হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির, হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, কুরআনুল কারীম মানবজাতির জন্য একমাত্র সংবিধান। যতদিন পর্যন্ত দেশে কুরআনের অনুশাসন কায়েম হবে না এবং কুরআনের বিধান অনুযায়ী দেশ পরিচালিত হবে না, ততদিন পর্যন্ত দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠিত হবে না। কুরআনের অনুশাসন ছাড়া কস্মিনকালেও দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভবও নয়।

 

গতকাল বুধবার (২০ জানুয়ারি) হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ নোয়াখালী জেলার উদ্যোগে বেগমগঞ্জ স্টেডিয়াম মাঠে আয়োজিত ইসলামি মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

 

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, হযরত ওমর ইবনুল আব্দুল আজিজ রহ. কুরআনের বিধান অনুযায়ী দেশ পরিচালনা করেছিলেন তাই তাঁর শাসনামলে সর্বত্র শান্তি-শৃঙ্খলা, ন্যায় ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠা হয়েছিলো। মানুষের মধ্যে ইনসাফ কায়েম হওয়ার পাশাপাশি পশুপাখির মধ্যেও ইনসাফ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো। ওমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ. এর শাসনামলে বাঘ ছাগল একঘাট থেকে পানি পান করতো। বাঘ কখনো ছাগলের উপর হামলা করেনি। কুরআনের অনুশাসন চালু ছিলো বলে হযরত ওমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ. এর শাসনকাল ছিলো শান্তিতে ভরপুর।

 

সুশিক্ষা জাতীর মেরুদণ্ড উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ডারউইনের বিবর্তনবাদ সহ ইসলাম বিরোধী শিক্ষানীতি প্রণয়নের মাধ্যমে আজ শিক্ষাব্যবস্থাকে পঙ্গু করে দেওয়া হচ্ছে। শিক্ষা ব্যবস্থায় ইসলামকে মাইনাস করার সুদূরপ্রসারী ষড়যন্ত্র চলছে। তবে মনে রাখতে হবে ইসলামকে বাদ দিয়ে কোন শিক্ষানীতি এ দেশে বাস্তবায়ন হতে দেওয়া হবে না। দেশপ্রেমিক ও সুনাগরিক তৈরী করতে প্রাথমিক স্তর থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত ইসলামি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

 

আল্লামা বাবুনগরী আরও বলেন, ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় পরিমণ্ডল সহ সর্বক্ষেত্রে কুরআনের অনুশাসন চালু হলে দেশে শান্তির বাতাস বইবে। কুরআনের অনুশাসন ছাড়া মানব রচিত কোন আইন, তন্ত্রমন্ত্র আর থিওরী দ্বারাই দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা যাবে না।

 

নোয়াখালী জেলা হেফাজতের আমীর মাওলানা শাব্বির আহমদের সভাপতিত্বে মাহফিলে আরও বয়ান করেন, হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক, কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী মহাসচিব মুফতী মুশতাকুন্নবী কাসেমী, কেন্দ্রীয় কমিটির নায়েবে আমির ও নোয়াখালী জেলা কমিটির সিনিয়র সহ- সভাপতি মাওলানা নিজামুদ্দিন, জেলা কমিটির সেক্রেটারি মাওলানা ইয়াকুব কাসেমী, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-দাওয়া বিষয়ক সম্পাদক ও নোয়াখালী জেলা কমিটির নায়েবে আমির মাওলানা ওমর ফারুক ফরিদী, নায়েবে আমীর মাওলানা সিদ্দিক আহমদ নোমান, নোয়াখালী জেলা হেফাজতের যুগ্মসচিব হাফেজ শাকের, নায়েবে আমীর মাওলানা কবীর আহমদ, জেলা কমিটির উপদেষ্টা মাওলানা তাহের হাবীব, সহ সেক্রেটারি মাওলানা আলমগীর আল আমান, দপ্তর সম্পাদক মুফতী মহিউদ্দিন, জেলা প্রচার সম্পাদক মাওলানা ইয়াসিন আরাফাত প্রমূখ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ