ফ্রান্সে মহানবী সা. কে অবমাননার প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম সৌদিআরব দাম্মাম শাখার প্রতিবাদ সভা- জনকল্যাণ২৪

প্রকাশিত: ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৭, ২০২০

ফ্রান্সে মহানবী সা. কে অবমাননার প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলাম সৌদিআরব দাম্মাম শাখার প্রতিবাদ সভা- জনকল্যাণ২৪

ফ্রান্স সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্ব নবী মুহাম্মদে আরাবী সাললাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ, বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে নারী নির্যাতন, নাস্তিক ও ইসলাম বিদ্বেষী কর্তৃক ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত এর প্রতিবাদে গত ৫নভেম্বর বৃহস্পতিবার এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। দাম্মাম হেফাজতের মুহতারাম সভাপতি মাওলানা জামালউদ্দিন উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন।

আবু বকর মোহাম্মদ রিজওয়ান এর পরিচালনায় শাখা সাধারণ সম্পাদক মাওলানা রফিকুল ইসলাম উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন, তিনি তার বক্তব্যে বলেন আমার দেখতে পাচ্ছি বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে মহানবী সা.কে অবমাননা করে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করা হচ্ছে, বাংলাদেশে ও ইসলামের অবমাননা করা হচ্ছে আমরা নবী প্রেমিক হিসেবে এর প্রতিবাদ করা আমাদের দায়িত্ব। তিনি রাসূলাল্লাহ সাললাল্লাহু এর একটি হাদিস কে উল্ল্যেখ করে বলেন নবী (সা.) বলেন, ‘তোমাদের কেউ যদি কোনো খারাপ কাজ বা বিষয় দেখে তাহলে সে যেন হাত দিয়ে তা পরিবর্তন করে দেয়, যদি তা করতে অপারগ হয় তাহলে যেন মুখ দিয়ে তার প্রতিবাদ করে, যদি তাও করতে সক্ষম না হয় তাহলে যেন অন্তর দিয়ে তা ঘৃণা করে, আর এটাই হচ্ছে ঈমানের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বলতম স্তর। ’ (বুখারি, হাদিস নং: ১৯৪)
তাই আমরা আমাদের অবস্থা থেকে এর প্রতিবাদ করে যাব, তাদের পণ্য বয়কট করব।

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা জামালউদ্দিন বলেন কোরআনের আয়াত:- নিশ্চয় আপনি মহান চরিত্রের অধিকারী’। (সুরা ক্বালাম : আয়াত ৪) আল্লাহ তাআলা যার চরিত্রের পবিত্রতার বিষয়ে নিজে সার্টিফিকেট দিয়েছেন সেই মহান ব্যক্তি কে নিয়ে যারা ব্যঙ্গ কার্টুন প্রকাশ করে তারা নিঃসন্দহে বর্বরর জাতী প্রায় দুই শত কোটি মুসলমান পৃথিবীর বুকে থাকার পরও যারা এমন দুঃসাহস দেখাতে পারে আমাদের দায়িত্ব ছিল তাদের চিহ্নকে দুনিয়ার বুক থেকে মুছেফেলা।

তিনি বলেন বাংলাদেশ সরকার যদি হেফাজতের ১৩ দফা বাস্তবায়ন করব বর্তমানে বাংলাদেশের ধর্মীয় ও সামাজিক ভাবে যে অবক্ষয় সৃষ্টি হয়েছে তা হত না। বর্তমান পরিস্থিতিই প্রমাণ করে ইসলামী নিয়মনীতির রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনীয়তা কতটুকু।

তিনি আরো বলেন অনতিবিলম্বে ফ্রান্সের রাষ্ট্র দূতকে বাংলাদেশ থেকে অপ্রসারণ করতে হবে। ফ্রান্সের সাথে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মাওলানা আব্দুর রহিম (নাবিয়া) মাওলানা আবুল কাসেম (সেভেনটি ওয়ান) মাওলানা মিজানুর রহমান মাওলানা আব্দুর রহমান (বাংলাদেশ স্কুল) মাওলানা মাহমুদুল হাসান ( আব্দুল্লা ফোয়াদ) মুফতি সাইফুল ইসলাম (আকরাবিয়া) মাওলানা নোমান (দাম্মাম মহানগর) মাওলানা নজরুল ইসলাম (সুবেকা)

অনুষ্ঠানে বিশেষ নসিহত ও দোয়া পরিচালনা করেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ দাম্মাম পূর্বাঞ্চলীয় শাখার প্রধান উপদেষ্টা হযরত মাওলানা ইলিয়াস সাহেব হাফি. তিনি অল্প কয়েকদিনের মাঝে ফাইনাল এক্সিটে বাংলাদেশে চলে যাবেন। হযরত তার বক্তব্য বলেন ২০১৩ সালে হেফাজতের প্রতিষ্ঠার পর থেকে দাম্মামে আমরা হেফাজতের ব্যানারে আমরা কার্যক্রম শুরু করি , বিভিন্ন প্রতিকূলতার মধ্যেও আমরাও শক্তি শালী ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের অনেক সাথী ইন্তেকাল করেছেন বা দেশে চলে গেছেন কিন্তু হেফাজতে কার্যক্রমের কোন কমতি আসেনি। আমি বিশ্বাস করি আগামীতেও আসবে না। সবাই সবার সাথে যোগাযোগ রাখবেন দায়িত্বশীলের কে সহযোগিতা করবেন। ইনশাআল্লাহ এই উঠা বসা আমাদের নাজাতের অছিলা হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ