ফ্রান্সে মহানবী সা. এর অবমাননার প্রতিবাদে জামালপুরে ছাত্র জমিয়তের মানববন্ধন-জনকল্যাণ২৪

প্রকাশিত: ৬:০৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১, ২০২০

ফ্রান্সে মহানবী সা. এর অবমাননার প্রতিবাদে জামালপুরে ছাত্র জমিয়তের মানববন্ধন-জনকল্যাণ২৪

ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর কার্টুন ও ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ জামালপুর জেলা।

রবিবার (১নভেম্বর) বাদ আছর জামালপুর শহরে দয়াময়ী মোড়ে জেলা সভাপতি মাওলানা জুবায়ের আহমদ এর সভাপতিত্বে জেলার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহদী হাসান এর সঞ্চালনায় মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়।

জুবায়ের আহমদ বলেন, ফ্রান্স রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতায় দেশটির বহুতল ভবনে আমাদের নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ অবহ্যত রাখার ঘোষণা দিয়ে মুসলিম উম্মাহর প্রতি প্রকাশ্যে বৈরিতা শুরু করেছে। ফ্রান্সের এই জঘন্য পদক্ষেপ বিশ্বের সকল মুসলমানদের অন্তরে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, নবী মুহাম্মদ (সা.) শুধু দুইশত কোটি মুসলমানের নবী নন, তিনি পুরো দুনিয়ার নবী। পুরো পৃথিবীর সাতশত কোটি মানুষের নবী হিসেবে তাকে পাঠানো হয়েছে। আজ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ মনবতার নবীকে অবমাননা করে মানবতা বিরোধী কাজ করে চলেছে।

জুবায়ের আহমাদ বলেন, গতপরশুদিন বাইতুল মোকাররম সহ সারাদেশ জুড়ে প্রায় পাঁচ লক্ষ মানুষের প্রতিবাদ হয়েছে। বিশ্বের কোটি কোটি মুসলমান নবীর প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে তাঁরাও প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছেন। কিন্তু এত শত প্রতিবাদ বিক্ষোভের আওয়াজ এখনো ম্যাক্রোঁদের কানে পৌঁছেনি। কিন্তু মুসলমান যখন ঘোষণা দিয়েছেন ফ্রান্সের কোন পণ্য আমার ব্যবহার করবো না, তখন ঘোষণার আলোকে কুয়েত, কাতার, বাহরাইন, তুরষ্ক, পাকিস্তান সহ আরো অনেক মুসলিম দেশে ফ্রান্সের পণ্য আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে নদীতে ভাসিয়ে দিচ্ছেন অনেকে।

তিনি বলেন, নির্লজ্জের ন্যায় আমরা দেখতে পেলাম ফ্রান্সের পরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে পণ্য বর্জনের আহবানকে তুলে নিতে বিশ্ব মুসলমান নেতাদের অনুরোধ করেছেন। অতএব, আমরা বুঝতে পারলাম ফ্রান্সের অর্থনীতিকে এই বর্জনের ডাক আঘাত করেছে। ইতোমধ্যে ফ্রান্সের শেয়ার বাজারে বড় পতন হয়েছে। তাদের অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করে দেয়ার জন্য ফ্রান্সের সকল পণ্য বয়কট করতে হবে। ফ্রান্স আলজেরিয়াকে ৮৫ বছর শোষণ, নির্যাতন করে পনের লক্ষ মুসলমানকে শহীদ করেছে। পনের লক্ষ মুসলমানের রক্তের উপর দাঁড়িয়ে বলছি, রসূলের অবমাননা করে দুনিয়ায় কেউই টিকে থাকতে পারে নাই। এমানুয়েল মাক্রোঁ তুমিও ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না, ইনশাআল্লাহ।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে মাওলানা জুবায়ের আহমদ বলেন, ফ্রান্স বাকস্বাধীনতার নামে ফৌজদারি অপরাধ করেছে। বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে এনামুয়েল মাক্রোঁ ও তার দেশ যেহতু অপরাধী, তাই বাংলাদেশ কোন অপরাধী দেশের সাথে সম্পর্ক রাখতে পারে না। অনতিবিলম্বে সরকারকে অনুরোধ করছি, ফ্রান্সের রাষ্ট্র দূতকে তলব করে আমাদের তরফ থেকে নিন্দা জানান এবং কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করুন। যদি নিন্দার পরও এই কার্টুন প্রদর্শন অব্যহত থাকে, তাহলে ফ্রান্সের রাষ্ট্র দূতকে বহিষ্কার করুন।

মাহদী হাসান বলেন, ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয়ভাবে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের পর সারা বিশ্বের মুসলিম উম্মাহের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়েছে। যার ফলে বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ গর্জে উঠেছে এবং মুসলিম বিশ্বের প্রায় রাষ্ট্র ফ্রান্সের পন্য বয়কট করেছে। পাশাপাশি মুসলিম নেতারা ফ্রান্সের কর্মকাণ্ডের জন্য নিন্দা প্রস্তাব করেছেন। এমন কি রাশিয়ার মত রাষ্ট্রও ফ্রান্স সরকারের সমালোচনা করেছে। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার জরুরি সংসদ অধিবেশন ডেকে নিন্দা প্রস্তাব তো দূরের কথা, নুন্যতম প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিতেও ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। এটা খুবই হতাশার ও দু:খজনক। মুসলিম জনসাধারণের পক্ষে সরকারের এমন নীতি-অবস্থান মেনে নেওয়ার মতো নয়।

ছাত্র নেতা মাহদী সরকার প্রধানকে উদ্দেশ্য করে বলেন, অনতিবিলম্বে আপনি ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে আমাদের পক্ষ থেকে নিন্দা প্রস্তাব করুন, অন্যথায় দেশের জনগণ আপনাদের এমন নিষ্ক্রীয়তার বিরুদ্ধে গর্জে উঠবে। আল্লাহর রাসূলের ইজ্জতের হেফাজতের স্বার্থে বাংলাদেশ থেকে ফ্রান্সের দূতাবাস নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।

সবশেষে আগামী ২ নভেম্বর হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরীর ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি সর্বাত্মকভাবে পালনের আহবান জানিয়ে মানববন্ধন সমাপ্ত করা হয়।

মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- আলমগীর উসামা, আব্দুল্লাহ আল মামুন, আলী আকবর, আবু সাঈদ, মাহদী হাসান ইয়ামিন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ