ধর্ষণ না কি ব্যভিচার: কোনটির শাস্তির বিধান চাই?- মাওলানা আব্দুল হাফিজ শমসেরনগরী

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২০

ধর্ষণ না কি ব্যভিচার: কোনটির শাস্তির বিধান চাই?- মাওলানা আব্দুল হাফিজ শমসেরনগরী

ইসলামী শরীয়তে যিনা-ব্যভিচার সম্পূর্ণ হারাম ও অবৈধ। আল্লাহ তাআলা যিনা-ব্যভিচারকারীর শাস্তি সুনির্দিষ্ট ও সুবিন্যস্তভাবে কুরআনে পাকে বর্ণনা করে দিয়েছেন।
যিনা-ব্যভিচার দু’ধরনের হয়ে থাকে:
(ক) উভয়পক্ষের সম্মতি ও স্বেচ্ছায় যে অপকর্ম হয়ে থাকে, এটাকে যিনা-ব্যভিচার বলা হয়। এতে উভয়পক্ষই ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক শাস্তিযোগ্য অপরাধে অপরাধী।
(খ) একপক্ষের স্বেচ্ছা ও সজ্ঞানে অপর পক্ষের অনিচ্ছা ও অসম্মতি থাকা সত্ত্বেও তার সাথে জোরপূর্বক অপকর্ম করাকে ধর্ষণ বা বলাৎকার বলে। এতে প্রথম পক্ষ অর্থাৎ স্বেচ্ছায় বলপ্রয়োগ করে যিনাকারীর জন্য ইসলামী শরীয়তে সুনির্দিষ্ট শাস্তির বিধান রয়েছে এবং সে আখেরাতেও শাস্তি ভোগ করবে। পক্ষান্তরে অপর পক্ষ যার সাথে বলপ্রয়োগ করে যিনা করা হয়েছে, সে ইহ-পরকালে শাস্তিযোগ্য অপরাধে অপরাধী হবে না।
এর দ্বারা বুঝা গেল যে, যিনা-ব্যভিচারের প্রথম প্রকারটি অপরাধ ও শাস্তির বিবেচনায় দ্বিতীয়টির তুলনায় অধিক মারাত্মক।
অতএব, শুধু ধর্ষণের শাস্তির বিধানের জন্য আন্দোলন করা এবং প্রথম প্রকারের যিনা-ব্যভিচারের ব্যাপারটিকে এড়িয়ে চলা কতটুকু যৌক্তিক হবে? চিন্তুক ও সচেতন মহল বিষয়টি ফিকিরে নেবেন। শুধু ধর্ষণের বিচার দাবি করে আমরা পরোক্ষভাবে যিনা-ব্যভিচারের বৈধতা দিচ্ছি না তো? না কি আমাদের কাঁধে বন্দুক রেখে অন্য কেউ শিকার করার হীন পায়তারা করছে? এসব বিষয়ে সচেতন মহলের সজাগ দৃষ্টি থাকতে হবে। চিন্তার পরিধি একটু প্রসারিত করলে সহজেই বোধগম্য হয়ে যাবে যে, যিনা-ব্যভিচারের পরিবর্তে ধর্ষণ শব্দটি ব্যবহারের পিছনে কোন হীন রহস্য লুকায়িত আছে কি না?
গোটা পশ্চিমা বিশ্বে ধর্ষণের শাস্তির বিধান আছে। সে অনু্যায়ী ধর্ষককে শাস্তিও দেওয়া হয়। কিন্তু যিনা-ব্যভিচারকারীর জন্য নির্ধারিত কোন শাস্তির বিধান নেই। তাকে কোন শাস্তিও দেওয়া হয় না। বরং তাদের সংস্কৃতি এটাই।
আমাদের দেশেও কি এমন কিছু হতে যাচ্ছে? পশ্চিমা সংস্কৃতি ছড়িয়ে দিতে এটা সুদূর কোন পরিকল্পনা নয় তো?
ইসলামের কোন বিধানের ভিত্তিতে আমরা ধর্ষকের ফাঁসির দাবি জানাচ্ছি। ইসলামী শরীয়তে যিনাকারীর শাস্তি প্রস্তরাঘাত কিংবা বেত্রাঘাত। সুতরাং আমাদেরকে বুঝে-শুনে এগুতে হবে। আমাদের কারণে যেন ইসলামের বারটা না বাজে। আমরা যেন কারো পাতানো ফাঁদে পা না দেই।
সর্বশেষ, সরকার ও সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে যিনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণসহ সর্বপ্রকার ফাহিশাত তথা নোংরামী থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে প্রস্তরাঘাত ও বেত্রাঘাতসহ যেকোন কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সবিনয় অনুরোধ করছি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ