লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ:এই পর্যন্ত নিহত ৮০- জনকল্যাণ২৪

প্রকাশিত: ১১:৩৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৪, ২০২০

লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ:এই পর্যন্ত নিহত ৮০- জনকল্যাণ২৪

জনকল্যাণ ডেস্ক: লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের নিহতের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৮০জন বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী। নিহতদের মধ্যে দেশটির রাজনৈতিক দল কাতায়েবের মহাসচিব নজর নাজারিয়ান রয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠে গোটা শহর। বিস্ফোরণের পড়ে বহু বাড়ির ছাদ এবং জানালা দরজা ভেঙে পড়ে। এমনকি বাড়ি থেকে জানলা দরজা ভেঙে কয়েক মাইল দূরের রাস্তাতেও এসে পড়ে। বৈরুতের বাসিন্দারা সন্ধ্যার সময় বন্দর এলাকায় কুন্ডলী পাকানো ধোঁয়া দেখতে পান। এবং খুব ভয়ঙ্কর শব্দ হয় এলাকায়। এর পরই জানা যায় বন্দর এলাকায় ভয়াবহ বিস্ফোরণ হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে নিরাপত্তা ও চিকিৎসা কর্মকর্তারা নিহতদের মরদেহ হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন।
মন্ত্রী হাসান হামাদ আরো জানান, দুইটি বিস্ফোরণে প্রায় চার হাজার ব্যক্তি আহত হয়েছেন। ফলে নিহতের সংখ্যা শেষ পর্যন্ত আরো অনেক বেশিতে গড়াবে বলে আশংকা করা হচ্ছে।
অন্যদিকে বৈরুতের ভয়াবহ বিস্ফোরণে লেবাননে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নিয়োজিত বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর যুদ্ধজাহাজ বিএনএস বিজয়ের আংশিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
৬ জন নৌবাহিনী সদস্য আহত হয়েছে। যার মধ্যে ২ জনের অবস্থা গুরতর বলে বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে। ঘটনার কিছুক্ষন পরেই দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ নৌবাহিনীর সদস্যদের খোঁজ নিতে জাহাজে যায়।
নিহতদের মধ্যে প্রবাসী বাংলাদেশিদের কেউ নিহত হয়ে কিনা কিংবা আহতদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশি আছেন তা এখনওনিশ্চিত করা যায়নি। লেবানন প্রবাসীদের হতাহত হয়ে থাকলে বাংলাদেশ দূতাবাসের সাথে নাম ও মোবাইল নাং দিয়ে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে!

কাতায়েব রাজনৈতিক দলের মুখপাত্র আল আরবিয়া ইংলিশকে নিশ্চিত করেছেন যে তাদের মহাসচিব বৈরুত উপকণ্ঠ কাঁপানো বিস্ফোরণের সময় আহত হন এবং পরে মারা যান। বিস্ফোরণের সময় নজর নাজারিয়ান বৈরুতের পার্টির সদর দফতরে ছিলেন।

বিস্ফোরণের আওয়াজ এতটাই তীব্র ছিল বহুদূরে থাকা দোকানের কাঁচ, বাড়ির জানালার কাঁচও ভেঙে পড়ে। ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা বৈরুতে জুড়ে।
এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বিস্ফোরণ এত শক্তিশালী ছিল যে তার মনে হয়েছিল তিনি নিজেও মারা যাবেন। হাসপাতালে আহতদের উপচেপড়া ভিড়। দমকল কর্মীরা আগুন নেভাতে হিমশিম খাচ্ছে।
ইতিহাসের নেক্কারজনক অমানবিক এই জঘন্য ঘটনার পেছনে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ঈসরাইলের হাত রয়েছে! এখনি ঈসরাইলকে ধ্বংস করা না গেলে আরব বিশ্বসহ মুসলিম বিশ্বকে আরো ভয়াবহ খেসারত দিতে হবে৷

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ