জননেতা মাওলানা কবির আহমদকে নিয়ে অপপ্রচার করে জনগণের আস্থা কমানো যাবেনা-জনকল্যাণ২৪

প্রকাশিত: ১:০৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০

জননেতা মাওলানা কবির আহমদকে নিয়ে অপপ্রচার করে জনগণের আস্থা কমানো যাবেনা-জনকল্যাণ২৪

মাওলানা কবির আহমদ। একজন সৎ সাহসী ও সমাজসেবী মানুষ। অন্যায়ের প্রতিবাদকারি ব্যক্তিত্ব। জৈন্তাপুর উপজেলার চাল্লাইন গ্রামে জন্মে নেয়া এ আপোষহীন তরুণ আলেমকে বৃহত্তর জৈন্তার জনগণ ভালো করেই চিনে-জানে। শুধু আলেম সমাজে নয়, খেটে-খাওয়া দিনমজুর মানুষের কাছে তাঁর পরিচয় আরো বেশি! এই জৈন্তাপুরের অলিতে-গলিতে দীর্ঘ ২০বছর থেকে সর্বস্তরের রাজনৈতিক, সামাজিক ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সাথে মাওলানা কবিরের ওঠাবসা।

তিনি কারো পুকুর পাড়ে বসতিস্থাপন করে বেড়ে ওঠেননি। এই দরবস্ত বাজারের একদিকে ব্যবসায়ী এবং অপরদিকে ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সেক্রেটারী হিসেবে সবসময়ই তিনি, মদ জোয়া, অন্যায়, অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে সুষ্পস্ট ভুমিকা নিয়েছেন। দুই দুইবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন! জনগণের ভোটে পাশ করার পরও এক রহস্যময় কারনে মাত্র কয়েকটা ভোটে গেলবার তাঁর বিজয় ছিনিয়ে নেয়া হয়! তবুও কবির ভাই এই সমাজে ১৫হাজার ভোটের আস্থার ঠিকানা। হে মিথ্যাবাদীরা, তোমাদের কী ক্ষতি করছেন তিনি? কেন তোমরা তাঁর ব্যাপারে মিথ্যা তুহমত দিচ্ছো?

যারা মাওলানাকে জড়িয়ে ‘মুখোশধারী’ এবং ‘ভূমিদস্যু’ কিংবা নানা মিথ্যা কটুবাক্যে আঘাত করছো তোমাদেরকে বলবো, আগুন নিয়ে খেলা করা শুভ হবে না! তাঁকে নিয়ে যেসব অপপ্রচার করছেন, সৎ সাহস থাকলে প্রমাণ পেশ করুন। আমরা তাঁকে চিনি, তিনি কারো ক্ষতি করতে পারেন না! তোমাদের সাথে মাওলানার কোনো দুষমনী নেই। ক্রেতা বিক্রেতার রাজসাক্ষী নাসির ভাই এখনো জীবিত আছেন!

আমরা সরেজমিন ঘুরেছি! আমরা যতটুকু জেনেছি, জমি বেচাকেনায় দুই পক্ষই একমত। শুধু জমিনের দাগ নম্বরে একটু দ্বিমত। এটা একদম সিম্পল একটা বিষয়। জমি বিক্রেতা আলমগীর এবং ক্রেতা মাওলানা কবির ভাইয়ের মধ্যখানে ৩য় একটা পক্ষ জলঘোলা করতে চাচ্ছে! জামেলা সৃষ্টি করে ফায়দা হাসিলের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। অথচ- বিষয়টা বাজার ব্যবসায়ী সমিতি ও এলাকার সালিশ ব্যক্তিদের কাছে বিচারাধীন এবং দুইজনেরই মনোনিত সাক্ষী বহাল আছেন। সুন্দর ও সহজ বিষয়টাকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করতে একটি মহল মাওলানার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে চালাচ্ছে। আমরা জৈন্তাপুরবাসী মুরব্বী শাসিত এলাকার জনগণ, বিশেষ করে দরবস্তের মানসম্মান নিয়ে কেউ যেনো ফেসবুকে অপপ্রচার না করেন! অন্যথায় আমরাও এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে এর প্রতিবাদ করতে প্রস্তুত থাকবো ইনশাআল্লাহ! এরপরও তোমরা অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করলে আমরা আঙুল বাঁকা করতে বাধ্য হবো।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ