বৃহত্তর জৈন্তায় গ্যাস সংযোগ জনদাবীতে পরিণত হয়েছে; ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ

প্রকাশিত: ২:২৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২০

বৃহত্তর জৈন্তায় গ্যাস সংযোগ জনদাবীতে পরিণত হয়েছে; ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ

আবু তালহা তোফায়েল :: গ্যাস; বাংলাদেশের খনিজ সম্পদ। আর এই খনিজ সম্পদ ১৯৫৫ সালে সিলেটের জৈন্তিয়া এলাকায় প্রথম খোঁজে পাওয়া যায়। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই জৈন্তিয়ার সম্পদ সারাদেশে ভোগ করলেও বৃহত্তর জৈন্তা তা থেকে বঞ্চিত। এই গ্যাস এ অঞ্চলের মানুষের জন্য না পাওয়া এক গণিমত। গত ৩ দশক থেকে এ অঞ্চলের মানুষ গ্যাসের জন্য লড়ে যাচ্ছে, কিন্তু গ্যাস নামক সোনার হরিণের লাগাল পাওয়া যাচ্ছে না।
০৫ জুলাই, রবিবার গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জননেতা মাওলানা গোলাম আম্বিয়া কয়েছ তার ফেইসবুক গণমাধ্যমে “বৃহত্তর জৈন্তায় গ্যাস সংযোগ জনদাবীতে পরিণত হয়েছে” শিরোনামে একটি বিবৃতি দেন। বেশ সাড়া জাগিয়েছে বিবৃতিটি৷ এতে বৃহত্তর জৈন্তার সর্বস্তরের জনসাধারণ পূণরায় এই দাবী জানিয়ে গণমাধ্যমে যে যার মত বক্তব্য দিচ্ছে।

বিবৃতিটি নিম্নে হুবহু তোলে ধরা হলো:

আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী, হযরত শায়খে ছত্রপুরী, হযরত শায়খে হরিপুরি, হযরত শায়খে ফাগুর বাড়ি রহ.সহ নাম না জানা হাজারো ওলি আউলিয়ার স্মৃতি ধন্য উত্তর সিলেটের প্রান্তিক জনপদ বৃহত্তর জৈন্তা।এই জনপদে জন্মগ্রহণ করে নিজেকে ধন্য ও গৌরবান্বিত মনে করি। মহান আল্লাহ পাকের অপার কুদরতি লীলা আর প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্যের আধাঁর হচ্ছে আমাদের বৃহত্তর জৈন্তা।এই জনপদের আলো বাতাসে লালিত সন্তানরা পৃথিবী ব্যাপি ধাপিয়ে বেড়াচ্ছে অত্যন্ত কৃতিত্ব আর সুনামের সহিত। এই জনপদের সন্তান হিসাবে আজ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মন্ত্রী জনাব ইমরান আহমদ বিপরীত বৈশ্বিক পরিস্হিতি মোকাবিলা করেও বিশ্বব্যাপি প্রবাসি বাংলাদেশিদের জীবন মান উন্নয়নে রেখে চলেছেন ব্যাপক অবদান। এই জনপদের বেশিরভাগ মানুষ খেটে খাওয়া ও মেহনতি।তাই আমাদের সম্পদের ভাগ কিংবা ন্যায্য হিস্যা পুঙ্খানুপুঙ্খ অংশ বুঝে নেওয়ার এখনি সময়। সেই ১৯৫৫ইং সনে হরিপুরে গ্যাস আবিস্কার ও ১৯৬২ইং সনে বানিজ্যিক উত্তোলন শুরু হয়ে ১৯৭৮সনে সিলেটে শহর কেন্দ্রিক সংযোগের সূচনা হলেও আমরা বৃহত্তর জৈন্তাবাসি এখনো অধরা। অবশেষে এই সীমান্ত জনপদের সার্বিক উন্নয়নের বরপুত্র, এই জনপদের বিশাল জনগুষ্টির ভাগ্য উন্নয়নের দ্রুবতারা,বৃহত্তর জৈন্তার প্রতিটি পাড়া মহল্লা কিংবা আকাঁ বাকাঁ মেটো পথ যার নখদর্পণে, নিবৃত পল্লির দরিদ্র কৃষকের জীর্ণ কুঠিরে বসবাসকারী সেই অনাথ কিংবা অসহায় মুখটাও যার নজর এড়ায়না, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা যার সংবিধানে একদম অনুপস্থিত, সেই মান্যবর অভিবাবক, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসি কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্হান মন্ত্রণালয়েরর মাননীয় মন্ত্রী জননেতা জনাব ইমরান আহমদ মহোদয় ২০১৮সালের ২৬জুন মহান জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে এক ঐতিহাসিক বক্তব্য প্রদান কালে বৃহত্তর জৈন্তায় গ্যাস সংযোগের দাবিটি উত্তাপন করেন। এই জনপদের আবাল বৃদ্ধ বণিতার ন্যায্য দাবিটি মহান জাতীয় সংসদে উত্তাপনের জন্য মাননীয় মন্ত্রীকে গোয়াইনাট উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রাণঢালা অভিনন্দ ও সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। এবং আমি এই এলাকার খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষ ও জৈন্তা ১৭পরগনা শালিস সমন্বয় কমিটির পক্ষ থেকে বৃহত্তর জৈন্তার সর্বত্র গ্যাস সংযোগের জোর দাবি জানাচ্ছি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ