গোয়াইনঘাটের বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির দিকে, দূর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত

প্রকাশিত: ২:৫৮ অপরাহ্ণ, জুন ২৯, ২০২০

গোয়াইনঘাটের বন্যা পরিস্থিতি উন্নতির দিকে, দূর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত

আদিল আহমদ: সিলেটের গোয়াইনঘাটে উজান হতে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক পরিবার।
বর্তমানে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে।
রবিবার দিবাগত রাত থেকে বন্যার পানি ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে।
গত এক সপ্তাহ ধরে টানা বৃষ্টি ও উজান হতে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গোয়াইনঘাটের প্রায় সব অঞ্চল/এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়ে।
গত মঙ্গলবার হতে পানি বেড়ে যাওয়ার ফলে জেলা-উপজেলা সদরের সাথে সড়ক পথের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।
পানিবন্দি ও গৃহবন্দি হয়ে পড়েন গোয়াইনঘাটের মানুষ।  কেউ কেউ হারিয়েছেন নিজের বাড়িটাও। অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন অনেকে।
গোয়াইনঘাট উপজেলাকে দূর্যোগপূর্ণ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছিলেন এলাকাবাসী এবং দ্রুত ত্রান সামগ্রী ও সহায়তা প্রদানের ব্যবস্থা করার জন্যেও দাবি জানান।
বন্যা পরিস্থিতির খবর পেয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্যে ত্রাণ ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয়ে সুপারিশ করে ৩৫ টন জি আর চাল বরাদ্দ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ ।
আরও ৩৮০ প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ করা হয়েছে ।
উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্যসহ সরকারি ট্যাগ অফিসারগণ ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছেন বলে জানা যায়। এরই ধারাবাহিকতায় গোয়াইনঘাটের ১০নং পশ্চিম আলীরগাঁও ইউনিয়নের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন। বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম মনিটরিং করতে সাথে ছিলেন গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুস সাকিব। ১০নং পশ্চিম আলীরগাঁও এর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবুল খায়ের বলেন, আজ সোমবার মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের সুপারিশে দেওয়া ত্রাণসামগ্রী
ইউনিয়নের বন্যাদূর্গত মানুষের মাঝে বুধিগাও, নাইন্দা, বালিহাওর, সাতাইন, রাউতগ্রাম হাওর এলাকায় জি আর চাউল, গুড়ো দুধ, শুকানো খাবার ও শিশুদের জন্য মাস্ক বিতরণ করা হয় ।
উপস্থিত ছিলেন গোয়াইনঘাটের সুযোগ্য নির্বাহী অফিসার নাজমুস সাকিব স্যার ও ইউপি সদস্যবৃন্দ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ