আমি বাংলাদেশ: নাজমুল হাসান ফাহিম

প্রকাশিত: ৬:১২ অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২০

আমি বাংলাদেশ: নাজমুল হাসান ফাহিম

★ আমি বাংলাদেশ ★

আমি বাংলাদেশ, জন্ম একাত্তরে, স্বাধীনতার গগনে আমার আবির্ভাব ১৯৭১ সালে। আমার দাপটে আগমন আজও গোটা বিশ্বের বিস্ময়, আমার দামাল ছেলেরা ছিল চির দূর্বার, অকতোভয়, শত চড়াই উৎরাই পেরিয়ে এনেছে অভিস্বরণীয় বিজয়। লাখো প্রাণ আর অগণিত মা – বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আজকের এই বাংলাদেশ। অবর্ণনীয় ত্যাগের এই সোনালী মানচিত্র গুটিকয়েকের হাতে হচ্ছে নির্যাতিত, নিপীড়িত, সোনালী ইতিহাস হচ্ছে কুলষিত। সবুজের এ ছামিয়ানা বার বার হচ্ছে রক্তে লাল।

তবে দেরী কেন বন্ধু শুনো আমার মর্মান্তিক ইতিহাস,আমি ঘাতকের হাতে বঙ্গবন্ধুর লাশ, বহুতল ভবনে আমি রডের বদলে বাঁশ।

আমি কথায় কথায় পাতিনেতাদের আউড়ানো বুলি, আমি হাস্যকার কথা “মোরা করোনার চে শক্তিশালী “, আমি ভূমিষ্ট হওয়ার আগেই নবজাতকের গায়ে গুলি।

আমি পিলখানায় দেশপ্রমীদের রক্তের বন্যা,
আমি স্বজন হারানো মানুষের গগনবিদারী কান্না।

আমি নির্দোষ ছেলে বিশ্বজিতের প্রাণে বাঁচার আকুতি,
আমি জাতীর বিবেক বিচারকদের আদালত প্রাঙ্গণে হাতাহাতি।

আমি একটু শান্তির খুঁজে কোটি মানুষের হাহাকার,
আমি রাতের ভোটের অবৈধ ‘মিডনাইট’ সরকার।

আমি লাশের স্তুপ রানা প্লাজা,
বিনা অপরাধেই ভোগ করেছি আমি ত্রিশ বছর সাজা।

আমি সীমান্তের কাটাঁতারে ঝুলে থাকা নির্যাতিতা ফেলানী,
মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক আমি এম এ জি উসমানী।

আমি গভীররাতে শাপলা চত্বরে মুসল্লীদের উপর অতর্কিত হামলা,
আমি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণিত বেগম জিয়ার উপর “কথিত মিথ্যা” মামলা।

আমি সাদপন্হীদের হাতে রক্তে রঞ্জিত ক্বওমী সন্তান,
আমি পেঠের দায়ে দু-মুঠো ভাতের জন্য হর হামেশা হতে হয় হয়রান।

আমি শাষনের নামে জনগণকে প্রতিনিয়ত করি শোষণ,
আমি মায়ের সামনে মেয়েকে বেধে রাতভর শারীরিক নির্যাতন।

কাগজ কলমে ঠিকই হয়েছি স্বাধীন,
বাস্তবে আজ অবধি রয়ে গেলাম পরাধীন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ