ছাতকে বিদুৎ বিভাগের খামখেয়ালীপনায় অতিষ্ঠ গ্রাহকরা

প্রকাশিত: ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২০

ছাতকে বিদুৎ বিভাগের খামখেয়ালীপনায় অতিষ্ঠ গ্রাহকরা

মোহাম্মদ জাহিদ হাসান,ছাতক প্রতিনিধিঃ-  ছাতকে ঘন -ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাট ও অচলাবস্হার ফলে জনমনে অসন্তুষ চরম আকারে পরিণত হয়েছে।দেখার যেন কেউ নেই-?প্রতিদিন বিদ্যুৎ ঘণ্টার পর ঘণ্টা উধাও হওয়া নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িঁয়েছে।প্রতিকার চাওয়ার মতো কোনো জায়গা খুঁজে পাচ্ছেন না গ্রাহকরা।ছাতকে অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান,সরকারি অফিস-আদালত,এনজিও কার্যালয় ও বাসা-বাড়িতে অবস্হানরত লোকবল বিদ্যুতের ভেল্কি বাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন।সরকারের উদ্যোগ -ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ এ প্রবাদটি কাল্পনিক আকার ধারন করছে।পল্লী বিদ্যুৎ সহ (BPDB)’র একই করুন অবস্হা।এ যেন মড়ার উপর খরার ঘাঁ হয়ে দাড়িঁয়েছে।(কোভিড-১৯) বৈশ্বিক মহামারীতে সমগ্র বিশ্বের ন্যায় আমাদের দেশ যখন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে ঠিক তখনই বিদ্যুৎ বিভাগটিও যেন নিরবে নিবৃত্তে রহস্যজনক স্হানে লুকিয়ে পড়েছে।প্রতিনিয়ত যত্রতত্র ভাবে বিদ্যুৎ আসা-যাওয়া নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িঁয়েছে।বিদ্যুতের সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্হা নেই বললেই চলে।মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরের কেউ ফোন রিসিভ করেননি।করোনা মহামারীতে বিদ্যুতের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম।বিদ্যুতের যন্ত্রনায় হাসপাতাল গুলো সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।এ রিপোর্ট লেখাকালীন সময়ে ছাতকের দক্ষিনাঞ্চল সমূহে বিশেষ করে জাউয়া এলাকায় বিদ্যুতের খামখেয়ালিপনা চরম আকার ধারন করেছে।

সংশ্লিষ্ঠদের সাথে যোগাযোগ করা হলে এ ব্যাপারে কেউ সমাধানের আশ্বাস দিচ্ছেন না।করোনা ভাইরাসে আক্রান্তকারী লোকজন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার ফলে বিদ্যুৎ বিভ্রাটে নাজেহাল অবস্হা উপভোগ করতে হচ্ছে।অথচ অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করা হলেও গ্রাহকরা কাঙ্খিত বিদ্যুৎ সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন।০৯ জুন সকাল থেকে রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জাউয়া বাজার সহ কৈতক হাসপাতাল এলাকায় বিদ্যুৎ নেই।ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সমূহ বাসা-বাড়িতে অবস্হানরত রোগীসহ সমগ্র শ্রেনীপেশার বিদ্যুৎ উপকারভোগী লোকজন চরম কষ্ঠের মধ্যে রয়েছেন।জনগনের সেবা দানে তৃনমূল থেকে শুরু করে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ন স্হানে জনপ্রতিনিধি সহ সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ নিয়োজিত থাকলেও এ বিষয়টির সমাধানে কারো কোনো মাথাব্যথা আছে বলে মনে হচ্ছেনা।মানুষজন করোনার আক্রমনে যখন দিশেহারা বিদ্যুৎ বিভাগের যন্ত্রনায় গ্রাহকরা চরম হতাশায় ভুগছেন।বিষয়টির সুরাহা করতে ভুক্তভোগী গ্রাহকর্ বিদ্যুৎ সংশ্লিষ্ঠদের আসু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।এ বিষয়টির জন্য ছাতক বিদ্যুৎ বিতরন সরবরাহ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।সহকারি প্রকৌশলী আলাউদ্দীন’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন,আমি বর্তমানে ছুটিতে রয়েছি।তারপরও বিদ্যুৎ সমস্যা নিয়ে আমি অফিস সংশ্লিষ্ঠদের সাথে এ ব্যাপারে কথা বলে সমস্যা সমাধানের অবশ্যই চেষ্ঠা করব।বিষয়টি জরুরী হিসেবে দেখার জন্য ভুক্তভোগী গ্রাহকদের দাবী।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ