অন্যরকম ঈদের সামনে মুসলিম বিশ্ব

প্রকাশিত: ২:৫২ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০২০

অন্যরকম ঈদের সামনে মুসলিম বিশ্ব

আব্দুল্লাহ সালমান

ঈদ আরবি শব্দ। এর শাব্দিক অর্থ হচ্ছে ফিরে আসা। বছর ঘুরে মহান এ দিন আবার ফিরে আসে বলেই একে ঈদ নামে নামকরণ করা হয়েছে। মুসলিম জাতির বৃহত্তম ধর্মীয় অনুষ্ঠান হচ্ছে ঈদ। বছরে দুটি ঈদের মধ্য থেকে প্রথমটি আমাদের সামনে হাজির হয়েছে। যাকে ঈদুল ফিতর বলা হয়।

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏ “‏ الصَّوْمُ يَوْمَ تَصُومُونَ وَالْفِطْرُ يَوْمَ تُفْطِرُونَ وَالأَضْحَى يَوْمَ تُضَحُّونَ-
আবু হুরাইরা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন- যেদিন তোমরা সবাই রোযা পালন কর সে দিন হল রোযা। যেদিন তোমরা সবাই রোযা ভঙ্গ কর সে দিন হল ঈদুল ফিতর। আর যেদিন তোমরা সবাই কুরবানি কর সে দিন হল ঈদুল আযহা। — সহীহ, ইবনু মা-জাহ (১৬৬০)
হাদিস অনুযায়ী শাওয়াল মাসের প্রথম দিন ঈদুল ফিতর। অর্থাৎ আগামীকাল সোমবার ২৫ মে বাংলাদেশে মুমলিম জাতির ধর্মীয় এ উৎসব পালন হবে।
ঈদ বলতেই হাসি-খুশি আর আমোদ-প্রমোদের একটা দৃশ্য হৃদয়ে ভেসে ওঠে। কল্পনায় জাগে ধনী-গরিবের ভেদাভেদ ভুলে এক কাতারে দাঁড়ানোর একটা সামাজিক মেলবন্ধন। উচ্চবিত্ত থেকে শুরু করে অসহায় ও দুস্থদের পরিবারেও একটা আনন্দের বাতাস বইতে থাকে।
ইসলাম ধর্ম সবার মুখে হাসি ফুটাতে যাকাত ও ফিতরাকে ওয়াজিব করেছে। ফলে গরিবের গায়েও জড়ায়ে থাকে ঝকঝকে নতুন পোশাক। সবমিলিয়ে ঈদের পরিবেশটা থাকে বেশ মনোরম ও মানবতাময়। কিন্তু সাম্প্রতিক ঈদ হতে যাচ্ছে অন্যরকমভাবে। এমন ঈদ পৃথিবী আদৌ দেখেছে কি না জানি না, দেখলেও শেষ কবে দেখেছিল বলা মুশকিল।
ঈদের দিনে সবাই যখন অহঙ্কার-অহমিকা বিসর্জন দিয়ে গরিব-দুঃখির পাশে বসে, কাছে দাঁড়ায়, কোলাকোলিতে জড়ায়, একে অপরের দিকে সোহাগের হাত বাড়িয়ে দেয়- এর বদলে এবার হয়তো মানুষের মনে বিরাজ করবে ভীতি আর শঙ্কা। কেউ কারও কাছে যেতে চায় কি না তা নিয়েও আছে সংশয়। করোনাভাইরাসের প্রভাবে পুরো বিশ্ব আজ ভীতিকর সময় পার করছে। ভয়াবহ এ মহামারির কাছে আত্মসমর্পণ করছে সকল পরাশক্তি। এ যেন প্রভুর এক লিলা।
এতকিছুর পরও ঈদের খুশিটা যে একেবারেই নেই সেটা কিন্তু না। যাদের জন্যে স্বজনদের সঙ্গে ঈদের সুযোগ প্রায়ই হয়ে ওঠে না তারা আজ পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে হলেও ঈদ করবে প্রিয়জনদের সাথে, পাড়া-মহল্লা-গ্রামের মানুষের সাথে।
যে যেখানেই ঈদ করুন সবার প্রতি রইলো আমাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা, সাথে সাথে অসংখ্য শুভ কামনা। বিত্তবানদেন প্রতি আমাদের অনুরোধ থাকবে- আপনারা ফিতরা ও যাকাতের পাশাপাশি সার্বিকভাবে অসহায়দের ঈদের আনন্দে শরিক হোন, তাদের মুখেও যেন হাসি ফুটে সে-দিকে খেয়াল করুন।
রবের কাছে দোয়া করি ‘ঈদের ওসিলায় যেন আমাদেরকে করোনার থাবা থেকে মুক্তি দেন’।
সবার ঈদ হোক নিরাপদ ও সুখময়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ